১০ ব্যাংকের খেলাপি ঋণ বেড়ে ৬৯,৬৭১ কোটি টাকা

২০২২-২৩ অর্থবছরে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংকসহ ১০ ব্যাংকের খেলাপি ঋণ আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। জুন শেষে ১০টি ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬৯ হাজার ৬৭১ কোটি টাকা, যা ব্যাংকিং খাতের রেকর্ড খেলাপি ঋণ ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩৯ কোটি টাকার ৪৫ শতাংশ।

এক বছর আগে এই ১০ ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ছিল মোট ঋণের ৩৮ দশমিক ২ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ৩০ জুন পর্যন্ত আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের বিতরণ করা ঋণের ৮৬ দশমিক ৬৫ শতাংশ ছিল খেলাপি হয়েছে, আগের বছরের একই সময়ে যা ছিল ৮২ দশমিক ৬১ শতাংশ।

একই সময়ে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বেসিক ব্যাংকের বিতরণ করা ঋণের ৬২ দশমিক ৬৬ শতাংশ খেলাপি হয়েছে। শেখ আবদুল হাই বাচ্চু এই ব্যাংকটির চেয়ারম্যান থাকাকালে ব্যাপক অনিয়মের ঘটনা ঘটেছিল। এক বছর আগে ব্যাংকটির খেলাপি ঋণ ছিল বিতরণ করা ঋণের ৫৮ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

জুন শেষে এস আলম গ্রুপের মালিকানাধীন বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের ৫০ দশমিক ৪৯ শতাংশ ঋণ খেলাপি হয়েছে, যা এক বছর আগে ছিল ৪২ শতাংশ।

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন আরেক বাণিজ্যিক ব্যাংক বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের বিতরণ করা ঋণের ৪৪ শতাংশই খেলাপি হয়েছে, যা আগের বছরের ৩৬ দশমিক ০৭ শতাংশ থেকে বেশি।

গত এক বছরে রাষ্ট্রায়ত্ত জনতা ব্যাংকের খেলাপি ঋণ অনেক বেড়েছে। জুন শেষে ব্যাংকটির মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা, যা তাদের মোট ঋণের ৩২ দশমিক ৬ শতাংশ। এক বছর আগে ব্যাংকটির মোট ঋণের ২৪ দশমিক ৯১ শতাংশ খেলাপি ছিল।

জনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আবদুল জব্বার গত ২ অক্টোবর বলেন, ‘আমরা খেলাপি ঋণ পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করছি। কিছু সমস্যা আছে, কিন্তু খুব খারাপ কিছু ঘটছে না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনতা ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, ব্যাংকটি কিছু বড় ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ ঋণ আদায় করতে পারছে না, সেগুলো খেলাপিতে পরিণত হয়েছে।

এর পরেই আছে অগ্রণী ব্যাংক। জুন পর্যন্ত তাদের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে মোট বিতরণ করা ঋণের ২৩ দশমিক ৫১ শতাংশ, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৭ দশমিক ২৩ শতাংশ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে যথাযথ বিবেচনা ছাড়াই বিপুল পরিমাণ ঋণ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, এ কারণে ব্যাংকটির খেলাপি ঋণ বেড়েছে।

এবি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ আগের বছরের ১৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ থেকে বেড়ে ১৮ দশমিক ৬১ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

মার্কেন্টাইল ব্যাংকের খেলাপি ঋণের হার দাঁড়িয়েছে ৮ দশমিক ৩ শতাংশ, যা আগের বছরের চেয়ে ৩ দশমিক ৯১ শতাংশ পয়েন্ট বেশি।

মার্কেন্টাইল ব্যাংকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মহামারির সময় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের শিথিল নীতি প্রত্যাহারের কারণে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের খেলাপি ঋণ বেড়েছে।

তিনি বলেন, এখন ঋণগ্রহীতারা চলমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতিকে অজুহাত হিসেবে ব্যবহার করে ঋণ পরিশোধে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না।

সেনাবাহিনীর মালিকানাধীন ট্রাস্ট ব্যাংকের খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ, যা আগের বছর ছিল ৩ দশমিক ৪৮ শতাংশ।

ইউসিবির খেলাপি ঋণ ১ দশমিক ৯৪ শতাংশীয় পয়েন্ট বেড়ে হয়েছে ৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের সাবেক চেয়ারম্যান আনিস এ খান বলেন, ‘কিছু ইচ্ছাকৃত খেলাপিরা আছেন, যাদের ঋণ ফেরত দেওয়ার কোনো ইচ্ছা নেই। আবার কিছু ঋণগ্রহীতার ঋণের প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়নি এমন খাতে অর্থ সরিয়ে নেওয়ার প্রবণতা আছে।’

সৌজন্যে: ডেইলি স্টার

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *