যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসছে ‘অস্বাভাবিক’ প্রবাসী আয়, খতিয়ে দেখার তাগিদ সিপিডির

পাচার করা টাকা রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয় হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে ফিরে আসছে কি না, তা খতিয়ে দেখার পরামর্শ দিয়েছে বেসরকারি গবেষণাপ্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)।

সংস্থাটি বলছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ৩০৫ কোটি ডলার এসেছে। গতবার একই সময়ে ২৮৭ কোটি ডলার এসেছিল। অন্যদিকে গত জুলাই-এপ্রিলে সৌদি আরব থেকে রেমিট্যান্স এসেছে ৩০৪ কোটি ডলার, যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৮২ কোটি ডলার কম।

আজ শনিবার অর্থনীতির বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে সিপিডি। ধানমন্ডির নিজস্ব কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়। সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন মূল বক্তব্য তুলে ধরেন।

ফাহমিদা খাতুন বলেন, বিদেশে লোক যাওয়া ও রেমিট্যান্স পাঠানোর মধ্যে একটা অসামঞ্জস্য আছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে বেশি রেমিট্যান্স আসছে, যা অস্বাভাবিক। এর সম্ভাব্য কারণ হতে পারে, পাচার করা অর্থ ফেরত আসছে। যেহেতু রেমিট্যান্স হিসেবে দেশে আনলে আড়াই শতাংশ প্রণোদনা পাওয়া যায়, সেই সুযোগ কেউ কেউ নিতে পারেন। এ বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ খতিয়ে দেখতে পারে।

তিনি উল্লেখ করেন যে পাচার করা অর্থ দেশে ফিরিয়ে আনলে তার ওপর কর আরোপ করার বিধান রয়েছে। উল্টো এখন রেমিট্যান্স হিসেবে অর্থ দেশে এনে প্রণোদনার সুবিধা নেওয়া হচ্ছে কি না, তা দেখা যেতে পারে বলে ফাহমিদা খাতুন মনে করেন।

সিপিডি আরও বলছে, ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৩ সালের এপ্রিল পর্যন্ত প্রায় ১২ লাখ ৩০ হাজার লোক সৌদি আরবে গেছেন। এই সংখ্যা ওই সময় প্রবাসে যাওয়া সাড়ে ২১ লাখ লোকের প্রায় ৫৭ শতাংশ। কিন্তু এই সময়ে সৌদি আরব থেকে আসা রেমিট্যান্স কমেছে, তবে বেড়েছে যুক্তরাষ্ট্র থেকে। রেমিট্যান্স পাঠানোয় সৌদি আরবের জায়গা নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

সৌজন্যে: প্রথম আলো

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *