বেশি দামে ডলার কেনাবাচা করায় ৭ মানি চেঞ্জারের লাইসেন্স স্থগিত

ডলারের বেঁধে দেয়া দামের চেয়ে বেশি দামে কেনাবেচা করায় সাত মানি চেঞ্জারের লাইসেন্স স্থগিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই সঙ্গে আরও ১০ মানি চেঞ্জারের কাছে ব্যাখ্যা তলব করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগ গতকাল বুধবার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও  মুখপাত্র মেজবাউল হক।

তিনি বলেন, নির্ধারিত দরে লেনদেন না করার কারণে ৭ মানি চেঞ্জারের লাইসেন্স স্থগিত করা হয়। আর ১০টির কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়। মানি চেঞ্জারগুলোকে বলা হয়েছে ঘোষিত দরের চেয়ে এক টাকার বেশি দরে কিনতে পারবে না। আর বিক্রির সময় কেনা দরের চেয়ে দেড় টাকার বেশি লাভে বিক্রি করতে পারবে না। কিন্তু দেখা যাচ্ছে অধিকাংশ এ নিয়ম মানছে না। তাই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ব্যাখ্যা পাওয়ার পর অন্যদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

লাইসেন্স স্থগিত করা সাত মানি চেঞ্জার হলো ইয়র্ক মানি এক্সচেঞ্জ, জামান মানি চেঞ্জিং হাউস, জেনি মানি এক্সচেঞ্জ, স্ট্যান্ডার্ড মানি এক্সচেঞ্জ, মার্সি মানি এক্সচেঞ্জ, জেবি মানি এক্সচেঞ্জ ও বেঙ্গল মানি এক্সচেঞ্জ। লাইসেন্স স্থগিত করার জন্য যেসব কারণ বলা হয়েছে, তার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা লঙ্ঘন করে নির্ধারিত হারের চেয়ে বেশি দামে ডলার কেনাবেচা করা, বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে ডলারের দামের অসত্য তথ্য জমা দেয়া ও লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে নিয়মিত তথ্য জমা না দেয়া।

ব্যাখ্যা তলব করা ১০ মানি চেঞ্জার হলোÑনিউ প্রাইম মানি চেঞ্জার, উত্তরা মানি চেঞ্জার, মিসা মানি এক্সচেঞ্জ, যমুনা মানি এক্সচেঞ্জ, পাইওনিয়ার মানি এক্সচেঞ্জ, বুড়িগঙ্গা মানি এক্সচেঞ্জ, স্কাফ মানি চেঞ্জার, হযরত খাজা বাবা মুদ্রা বিনিময় কেন্দ্র, গ্লোরি মানি এক্সচেঞ্জ ও মাতৃক মানি চেঞ্জার।

দেশে যখন আবারও নগদ ডলারের সংকট দেখা দিয়েছে, তখন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষে থেকে এসব মানি চেঞ্জারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হলো। বাজার সূত্রে জানা গেছে, বেশির ভাগ ব্যাংক ও মানি চেঞ্জারে ডলার মিলছে না। ফলে নগদ ডলারের দাম আবারও বেড়ে গেছে। রাজধানীতে খোলাবাজারে প্রতি ডলার ১১৭-১১৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের বেঁধে দেয়া নিয়ম অনুযায়ী, এখন নগদে প্রতি ডলারের দাম ১১২ টাকা ৫০ পয়সার মধ্যে থাকার কথা।

বাফেদা ও এবিবির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, রপ্তানি বিল নগদায়নে প্রতি ডলারের বিপরীতে ১০৮ টাকা ৫০ পয়সা, রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয়ে ১০৯ টাকা ও আন্তঃব্যাংক লেনদেনে সর্বোচ্চ ১০৯ টাকা ৫০ পয়সা পাওয়া যাবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *