ফ্রিল্যান্সারদের কাছে জনপ্রিয়তা বাড়ছে প্রিয় পে’র

আমেরিকান ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা ‘প্রিয় পে’

আমেরিকান ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা ‘প্রিয় পে’র মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সাররা খুব সহজেই এখন দেশে টাকা আনতে পারছেন। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের তুলনায় চার্জ কম হওয়ার এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে দেশের ফ্রিল্যান্সারদের মাঝে।

ফ্রিল্যান্সার ও রিমোট জব যারা করেন, তারা বলছেন, প্রিয় পে’র সুবিধা অনেক। বিশেষ করে দেশে বসে আমেরিকান ব্যাংক অ্যাকাউন্ট চালানো এবং কোনো সমস্যা হলে সহজেই যোগাযোগ করা যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক অন্যান্য প্ল্যাটফর্মের তুলনায় এর চার্জ কম, খুব সহজেই পেমেন্ট নেওয়া যায় এবং দেওয়া যায়। রিয়েল টাইমে দেশে টাকাও আনা যাচ্ছে, যা অন্য কোনো মাধ্যমে সম্ভব না।

ব্যবহারকারীরা বলছেন, কেবল আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্ম নয়, বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তারা খুব সহজেই প্রিয় পে দিয়ে পেমেন্ট করতে পারছেন। ডলার থেকে টাকায় কনভার্ট হয়ে তা পেমেন্ট হয়ে যাচ্ছে। ডলার রেট নিয়েও তারা খুশি।

এমন সুবিধা চলমান হলে পেওনিয়র বা ওয়াইজ ব্যবহার করা ছেড়ে দিবেন বলেও মন্তব্য করেছেন কোনো কোনো ফ্রিল্যান্সার।

প্রিয় পে হচ্ছে আমেরিকান ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা। এর মাধ্যমে গ্রাহকরা আমেরিকান দুটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পেয়ে থাকেন। ১০টি ভার্চুয়াল ডেবিট মাস্টারকার্ড ফ্রি পাওয়া যাচ্ছে। ফিজিক্যাল কার্ডের ব্যবস্থাও রয়েছে। প্রিয় পে’র মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সাররা আপওয়ার্ক, ফাইবার, আমাজনসহ বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে সহজেই লেনকদেন নিতে পারছেন।

‘যখন আপনি মার্কেটপ্লেসে যাবেন, কাজ করবেন, পেমেন্ট নিবেন বা পেমেন্ট করতে যাবেন, তখন আপনি বুঝতে পারবেন আসলে প্রিয় পে আপনাকে কি সুবিধা দিচ্ছে। হিউজ পরিমাণ বেনিফিটস ফর আস।’

মনজুর আলম, প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী, শার্কো মিডিয়া

প্রিয় পে সম্পর্কে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী (সিইও) জাকারিয়া স্বপন বলেন, বাংলাদেশি প্রবাসীরা দেশে টাকা পাঠাতে বা ফ্রিল্যান্সাররা টাকা আনতে অনেক সমস্যার মুখোমুখি হন। আমরা সেসব সমস্যার সমাধানে কাজ করছি। বাংলাদেশিদের জন্য নিয়ে এসেছি ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা। শুরুতে এটা আমেরিকায় চালু হলেও এখন বাংলাদেশেও চালু করা হয়েছে। এটি পুরোপুরি আমেরিকান ব্যাংকিং ব্যবস্থা এবং এর মাধ্যমে খুব সহজেই ফ্রিল্যান্সররা দেশে টাকা আনতে ও প্রবাসীরা দেশে টাকা পাঠাতে পারবেন। পেওনিয়ার বা অন্যান্য যেকোনো অনলাইন প্ল্যাটফর্মের চেয়ে এর ব্যবহার অনেক সহজ এবং খরচও কম।

চলছে ডিসেম্বর অফার। ডিসেম্বর মাসে অ্যাকাউন্ট খুলে আইফোন ১৫ জিতে নেওয়ার সুযোগ।

জাকারিয়া স্বপন বলেন, প্রিয় পে’র চাহিদা দেশের ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে বাড়ছে। প্রতিদিন তারা আমাদের প্ল্যাটফর্মে সাইনআপ করছেন। আমরাও তাদের সমস্যাগুলোর কথা শুনছি এবং এসব সমাধানে কাজ করছি।

শার্কো মিডিয়ার প্রতিষ্ঠাতা মনজুর আলম ব্যবহার করছেন প্রিয় পে। বাংলাদেশে তৈরি আমেরিকান এই সার্ভিস সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রিয় পে ইউজ করছি বেশি দিন হয় নাই। অলমোস্ট দুই মাস হবে। আমি হিউজ বেনিফিটস পাচ্ছি। আগে আমি ওয়াইজ, পেওনিয়ার ইউজ করতাম। সেখানে দেখা যেত, অনেক ধরনের চার্জ কাটত। যখন আমি কারও কাছে পেমেন্ট নিতাম, তখন পেওনিয়ার ২.৫ শতাংশ কেটে থাকে। ওয়াইজ থেকে উইথড্র দিতে গেলেও বড় অ্যামাউন্ট চার্জ দিতে হয়। আবার যখন ডলার দেশে আনতাম, তখন অনেক ধরনের হ্যাসল পোহাতে হয়। সব মিলিয়ে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকার একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের অ্যাকসেস পাওয়া বা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট চালাতে পারাটা অনেক বড় বিষয়, ইট’স হিউজ বেনিফিটস।

প্রিয় পে’র প্রথম দিকের গ্রাহক ফ্রিল্যান্সার হাসনাত হান্নান তামিম। তিনি জানান, প্রিয় পে আসার পরপরই তিনি এর সাবস্ক্রিপশন নেন এবং খুব উপভোগ করছেন।

মনজুর আলমের একটি মার্কেটিং এজেন্সি রয়েছে। তিনি প্রিয় পে ব্যবহার করছেন।

হাসনাত হান্নান তামিম বলেন, আন্তর্জাতিক প্রায় সবগুলো প্ল্যাটফর্মই আমি ব্যবহার করেছি। প্রিয় পে’র ফিচারগুলো দারণ। বাংলাদেশে বসে এত সহজেই আমেরিকান ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করার সুযোগ, সত্যিই অতুলনীয়। তা-ও আবার এটি বানিয়েছে বাংলাদেশের ডেভেলপাররা। রিয়েল টাইম ডলার দেশে আনার সুযোগ রয়েছে।

ফ্রিল্যান্সার হাসনাত হান্নান তামিমের একটি শখ রয়েছে, বিভিন্ন ব্যাংকের কার্ড ব্যবহার ও সংগ্রহ করা। ইতিমধ্যে প্রিয় ফিজিক্যাল মাস্টারকার্ডও সংগ্রহ করেছেন বলেও জানান।

ফ্রিল্যান্সার ছাড়াও অন্যদের মাঝেও প্রিয় পে’র ব্যবহার বাড়ছে। বিশেষ করে যারা দেশের বাইরের কোনো সেবা নিতে চান। তেমনই একজন ব্যাংকার খুররম যাহ মুরাদ। নিজের ব্যক্তিগত কাজে প্রিয় পে‘র ব্যবহার সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমি আমার পারসোনাল পছন্দের যেমন গুগল প্লে স্টোর, নেটফ্লিক্স, স্পটিফাইয়ের সাবস্ক্রিপশন দিতে ব্যবহার করি। বাংলাদেশি ডুয়াল কারেন্সির কার্ড ব্যবহারে অনেক হ্যাসল রয়েছে এবং সেটির তুলনায় প্রিয় পে কার্ড পাওয়া অনেক সহজ। আমি আউটসোর্সিং করি না। সাধারণ ইউজার হিসেবে খুব সহজেই প্রিয় পে ইউজ করতে পারছি।

শিগগিরই প্রিয় পে থেকে বাংলাদেশে রিয়েল টাইম টাকা উইথড্র করা যাবে জানিয়ে জাকারিয়া স্বপন বলেন, আমরা এখন রিয়েল টাইম উইথড্র’র ট্রায়াল করছি। ট্রায়ালে স্মুথলি ডলার থেকে কনভার্ট হয়ে টাকা ঢুকছে গ্রাহকদের ওয়ালেটে। গ্রাহকরা এতে খুবই খুশি।

ট্রানজেকশন করে প্রিয় পে’র গ্রুপে পোস্ট করেছেন গ্রাহকরা

ট্রানজেকশন করে প্রিয় পে’র গ্রুপে পোস্ট করেছেন গ্রাহকরা

যেখানেই প্রবাসী বাংলাদেশি, সেখানেই প্রিয় পে

প্রিয় পে’র সিইও জাকারিয়া স্বপন জানিয়েছেন, বর্তমানে আমেরিকা ও বাংলাদেশে প্রিয় পে’র সার্ভিস চালু থাকলেও পরবর্তী সময়ে আমাদের সেবা সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার প্লান রয়েছে। খুব শিগগিরই আমরা কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশিদের জন্য সেবা চালু করব। এ ছাড়াও ইংল্যান্ড, ইউরোপ, মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, মধ্যপ্রাচ্য বা সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব, কাতার, কুয়েতসহ বিভিন্ন দেশে আমাদের সেবা চালু হবে। যেখানেই প্রবাসী বাংলাদেশি, সেখানেই প্রিয় পে। আমাদের লক্ষ্য, সবাইকে একটি প্ল্যাটফর্মে নিয়ে আসা। লেনদেনের জন্য একাধিক প্ল্যাটফর্মের প্রয়োজন নেই।

পেমেন্ট গ্রহণ সুবিধা

প্রিয় পে’র মাধ্যমে গ্রাহকরা আমেরিকার যেকোনো ব্যাংক এবং আপওয়ার্ক, অ্যামাজনসহ বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম থেকে ডলার বা পেমেন্ট গ্রহণ করতে পারছেন। কিছু কিছু ক্ষেত্রে সরাসরি এবং কিছু ক্ষেত্রে ব্যাংক ট্রান্সফারের মাধ্যমে ক্লায়েন্টের কাছে পেমেন্ট গ্রহণ করতে পারছেন।

এত দিন ফ্রিল্যান্সাররা শুধু পেওনিয়ার বা ওয়াইজ-এর মাধ্যমে পেমেন্ট গ্রহণ করতে পারতেন। অনেকের অভিযোগ রয়েছে, কোনো কারণ ছাড়াই কারও কারও অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে এসব প্ল্যাটফর্ম। তখন তারা যোগাযোগও করতে পারছেন না। কিন্তিু প্রিয় পে’র অফিস বাংলাদেশে হওয়ায় এই দুর্ভোগ পোহাতে হবে না।

প্রিয় পে ব্যবহার করে নেটফ্লিক্স, স্পটিফাইয়ে সহজেই পেমেন্ট করতে পারছেন ব্যাংকার খুররম মুরাদ

অ্যাকাউন্ট খুললেই ১০টি ভার্চুয়াল মাস্টারকার্ড ফ্রি

‘প্রিয় পে’র মাধ্যমে গ্রাহকরা দুইটি আমেরিকান ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পাচ্ছেন। দুই অ্যাকাউন্টের বিপরীতে ১০টি ভার্চুয়াল ডেবিট মাস্টারকার্ড পাচ্ছেন গ্রাহকরা। এর মাধ্যমে এর মাধ্যমে ফেসবুক বুস্ট করা, গুগল অ্যাডস রান করা, অ্যামাজন, নেটফ্লিক্সে পেমেন্ট করা যায় সহজেই।

রয়েছে ফিজিক্যাল মাস্টারকার্ড

শুধু ভার্চুয়াল কার্ডই নয়। গ্রাহকরা চাইলে এখন ফিজিক্যাল কার্ডও নিতে পারছেন। ফিজিক্যাল প্রিয় ডেবিট মাস্টারকার্ড পেতে হলে আলাদাভাবে অর্ডার করতে হবে।

বিশ্বব্যাপী পেমেন্ট

গুগল প্লে স্টোর, অ্যাপল প্লে স্টোর, নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন, স্পটিফাইসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মে খুব সহজেই পেমেন্ট করে প্রতিষ্ঠানগুলোর সেবা নিতে পারছেন প্রিয় পে’র গ্রাহকরা। এজন্য তাদের বাড়তি কোনো ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে না।

পেমেন্ট দেওয়া যাচ্ছে বাংলাদেশেও

প্রিয় পে জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত ২৯টি দেশে প্রিয় কার্ড ব্যবহার করে পেমেন্ট করা যাচ্ছে। দেশগুলো হলো- যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ, কানাডা, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, নেদারল্যান্ডস, আয়ারল্যান্ড, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ভারত, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, সৌদি আরব, ফ্রান্স, লুক্সেমবার্গ, হংকং, সাইপ্রাস, ডেনমার্ক, তুরস্ক, ইতালি, ইন্দোনেশিয়া, চীন, স্পেন, সুইজারল্যান্ড, সুইডেন, নরওয়ে, জাপান, কাতার ও কাজাখস্তান।

রিয়েল টাইম ট্রানজেকশন

প্রিয় পে থেকে বাংলাদেশি আইপে ওয়ালেটে রিয়েল টাইম উইথড্র করা যাচ্ছে। যেটি এখনও ট্রায়াল পর্যায়ে রয়েছে। প্রিয় পে থেকে উইথড্র করলে ডলার থেকে টাকায় কনভার্ট হয়ে রিয়েল টাইম আইপে অ্যাকাউন্টে যোগ হবে। এরপর আইপে থেকে বাংলাদেশি ব্যাংকে উইথড্র করে টাকা উত্তোলন করা যাবে।

প্রিয় পে’র খরচ কেমন

আমেরিকান এই ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা পেতে হলে একজন গ্রাহককে প্রতি মাসে দুই ডলার করে বছরে মোট ২৪ ডলার সাবস্ক্রিপশন ফি দিতে হয়। তবে শুরু থেকেই অফার চলছে। এর ফলে মাসে ১ ডলার করে বছরে ১২ ডলারে সাবস্ক্রিপশন করতে পারছেন গ্রাহকরা।

তবে কেউ যদি বছরে ২ হাজার ডলার বাংলাদেশে উইথড্র করেন, তাহলে তিনি তার সাবস্ক্রিপশন ফি ফেরত পাবেন।

অন্যদিকে ভার্চুয়াল কার্ড ফ্রি হলেও ফিজিক্যাল কার্ড পেতে হলে চার্জ রয়েছে। সেক্ষেত্রে ফিজিক্যাল কার্ডের জন্য বছরে গুণতে হবে ১৯.৯৫ ডলার। ফিজিক্যাল প্রিয় ডেবিট মাস্টারকার্ড অর্ডার করার পর ডেলিভারি হতে ৩ থেকে ৬ সপ্তাহ সময় লাগে। অর্থাৎ আপনি অর্ডাার করলে ২১ দিন থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে কার্ডটি পেয়ে যাবেন।

প্রিয় পে অ্যাকাউন্ট খুললেই আইফোন ১৫*

ডিসেম্বর মাসে নতুন একটি অফার চালু করেছে প্রিয় পে। দুই মাসের জন্য সাবস্ক্রিপশনের সুযোগ রয়েছে, আগে সাধারণত এক বছরের জন্য সাবস্ক্রিপশন করতে হবে। এই অফারের আওতায় ২৯৯ টাকায় দুই মাসের জন্য সাবস্ক্রিপশন করা যাবে। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে যারা সাবস্ক্রিপশন করবেন, তাদের মধ্যে একজনকে আইফোন ১৫ গিফট দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে সাবস্ক্রিপশনকারীদের মধ্যে লাইভ লটারির মাধ্যমে একজনকে নির্বাচিত করা হবে। যিনি বিজয়ী হবেন, তিনি প্রিয় পে’র অফিস ভিজিটের আমন্ত্রণ পাবেন এবং তার হাতে আইফোন ১৫ তুলে দেওয়া হবে।

কীভাবে খুলবেন প্রিয় পে অ্যাকাউন্ট

১৮ বছরের ঊর্ধ্বে যেকোনো বাংলাদেশি প্রিয় পে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট বা ড্রাইভিং লাইসেন্সের যেকোনো একটির প্রয়োজন হবে। এ ছাড়াও মোবাইল নম্বর প্রয়োজন হবে। তাহলেই আপনি একটি প্রিয় পে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। 

অ্যাকাউন্ট খুলতে ভিজিট করুন প্রিয়’র (https://www.priyo.com)-এর ওয়েবসাইটে।

ভিডিওতে দেখুন অ্যাকাউন্ট খোলার পদ্ধতি

প্রবাসী বাংলাদেশিদেরকে নিজ মাতৃভূমির সঙ্গে যুক্ত করতে প্রিয়.কম আমেরিকায় চালু করে প্রিয়-পে ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা। ২০২২ সালের জুলাইয়ে এর কাজ শুরু হয় এবং ২০২৩ সালের জুলাইতে পুরোপুরি ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা চালু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ফ্রিল্যান্সারদের সমস্যা সমাধানে চলতি বছরের অক্টোবরে বাংলাদেশেও প্রিয় পে ব্যাংকিং সেবা চালু হয়। ফলে এখন যেকোনো বাংলাদেশি প্রিয় পে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারছেন।

প্রিয় পে সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন, ফেসবুক পেজ ফলো করুন ও অফিসিয়াল গ্রুপে জয়েন করুন।

আরও দেখুন

গ্রামে বসে আমেরিকার ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খুলুন ২ মিনিটে! 

কয়েক মিনিটেই বিদেশ থেকে ডলার দেশে আনতে পারবেন ফ্রিল্যান্সাররা : ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশন

Freelancers can now bring dollar earning in 5 minutes with Priyo Pay : The Business Standard

Priyo Pay to iPay Dollar Transfer Process : User’s Feedback

ফ্রিল্যান্সার হাসনাত হান্নান তামিমের রিভিউ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *