বাংলাদেশের এমএফএস খাতের হালচাল

দেশে এখন বিকাশ, নগদ, উপায়ের মতো মোবাইলে আর্থিক সেবা বা এমএফএস অ্যাকাউন্ট আছে ১৯ কোটিরও বেশি। ডিজিটাল পেমেন্ট সিস্টেমের সহজলভ্যতা এবং প্রযুক্তির উত্থান এক্ষেত্রে প্রধান সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ রিপোর্টে বলা হয়েছে। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিপোর্ট অনুসারে গত বছরের ডিসেম্বরে দেশে এমএফএস অ্যাকাউন্ট ছিল মোট ৯ কোটি ১১ লাখ, যা আগের বছরের তুলনায় ২ কোটি ১৪ লাখ বেশি। যেহেতু এমএফএস অ্যাকাউন্টের সংখ্যা বেড়েছে, সেহেতু বেড়েছে এই মাধ্যমে লেদনেদের সংখ্যা ও পরিমানও। পরপর তিন মাসের উন্নতির ধারাবাহিকতায় গত ডিসেম্বরে মোবাইলের মাধ্যমে লেনদেন ৯৬ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। 

তবে এমএফএস অ্যাকাউন্ট বাড়া মানেই যে ব্যবহারকারী বেড়েছে, বিষয়টি তেমন নয়। কারণ, একজন ব্যবহারকারীর একাধিক অ্যাকাউন্ট থাকতে পারে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এখনো দেশে এমএফএস ব্যবহারকারীর সংখ্যা তুলনামূলক কম এবং এটি বাড়াতে অনেক কিছু করার আছে। 

এমএফএসকে আরও জনপ্রিয় করার  জন্য এর সেবা আরও বাড়াতে হবে। মানুষ দিন দিন ডিজিটাল পেমেন্ট অভ্যস্ত হচ্ছে। বর্তমানে মার্চেন্ট পেমেন্ট, বিভিন্ন পরিসেবার বিল এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যাংক ডিপোজিট করা যাচ্ছে এমএফএসের মাধ্যমে। তবে এই সেবার পরিধি আরও অনেক বিস্তৃত করা সম্ভব। 

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এই এমএফএস দিয়ে বিশাল সংখ্যক মানুষকে ডিজিটাল ফাইনান্সিয়াল সিস্টেমের আওতায় আনা সম্ভব, যেহেতু দেশের অধিকাংশ মানুষের কোনো ব্যাংক একাউন্ট নেই। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুসারে বর্তমানে গ্রামাঞ্চলে এমএফএস ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১০ কোটি ৬০ লাখ এবং শহারাঞ্চলে এই সংখ্যা ৮ কোটি ৫০ লাখ। গ্রমাঞ্চলে এমএফএস অ্যাকাউন্টধারি বৃদ্ধির হার বছরে ৯.১৩ শতাংশ এবং শহরাঞ্চলে ১৭.১৯ শতাংশ। 

এর বাইরে ইনস্টিটিউশনাল অ্যাকাউন্টের সংখ্যাও বেড়েছে প্রায় সাড়ে চার লাখ। 

এমএফএস দিয়ে বিভিন্ন বিল পরিশোধের সংখ্যাও বাড়ছে। গত বছরের ডিসেম্বরে ১৯৫০ কোটি টপাকার বিল এমএফএস দিয়ে পরিশোধ করা হয়েছে। 

২০১০ সালে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনের পর দেশে ২০১১ সাল থেকে এমএফএস চালু হয়। সর্বপ্রথম ডাচ বাংলা ব্যাংকের ‘রকেট’ দিয়ে দেশে এমএফএসের যাত্রা শুরু হয়। পরে ব্র্যাক ব্যাংকের সহায়ক প্রতিষ্ঠান বিকাশও তাদের এমএফএস যাত্রা শুরু করে। বাংলাদেশের এমএফএসগুলোর মধ্যে বর্তমানে বিকাশের মার্কেট শেয়ার সবচেয়ে বেশি। তাদের পরেই আছে নগদ। 

বর্তমানে ১৩টি ব্যাংক মোবাইলে আর্থিক সেবা দিচ্ছে। জনপ্রিয় কয়েকটি এমএফএস হচ্ছে বিকাশ, নগদ, রকেট, ইউক্যাশ, মাইক্যাশ, উপায়, শিওরক্যাশ। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *