Life

Kamrul Hasan Masuk's picture

আমাদের নুরুল হক মাষ্টার, চলে গেলেন অন্তিম সয়ানে

10301279_856041694425020_8634633245375068318_n.jpg

পৃথিবীতে এমনকিছু মানুষ জন্মগ্রহণ করেন, যাদের জন্মটা পৃথিবীর জন্য অত্যান্ত আর্শিবাদ। এদের মধ্যে কিছু কিছু মানুষ যারা নির্লসভাবে সারাজীবন কাজ করে যান। জীবদ্দশায় অথবা মৃত্যুর পরও প্রচার প্রচারণার অভাবে বিশ্¦ব্যাপী বা দেশব্যাপী পরিচয় পান না। নিজেরাও কাজের স্বীকৃতি হিসেবে পরিচিত হন না। উনারা কাজ করে যান নিরবে, নিবৃত্তিতে। পরিচয় পাক আর না পাক এ নিয়ে উনারা কখনো মাথা ঘামান না। উনাদের কথা হচ্ছে কাজ করবেন, মানবসেবায় নিয়োজিত থাকবেন। এমন একজন মানুষ হচ্ছেন আমাদের আলহাজ্ব মোহাম্মদ নুরুল হক। পৃথিবীর আর্শিবাদ নিয়ে ১ লা অক্টোবর ১৯৩৬ সালে ব্রাক্ষণবাড়ীয়া জেলার, কসবা থানার খেওড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। উনার পিতার নাম মৃত: মিরাজ আলী, মাতা মৃত: আয়েশা খাতুন। উনার শিক্ষাজীবন থেকেই উনার সম্পর্কে জানার চেষ্টা করি:

AKM.Wahiduzzaman's picture

দুর্নীতি যখন সহনীয়!

corruption640.jpg
পরিবর্তিত পরিস্থিতির সাথে অভিযোজন করে মানিয়ে নেয়া মানুষের সহজাত স্বভাব। একটি আর্থ-সামাজিক সমস্যা সমাধানে রাষ্ট্র বা সমাজ যদি দীর্ঘদিন ধরে উদাসিন থাকলে আমরা ধীরে ধীরে সেই সেই সমস্যাকে সহনীয় মনে করে তার সাথে অভিযোজন করতে শুরু করি। বর্তমান সময়ে দুর্নীতি তেমনই একটা সমস্যা 'সহনীয় সমস্যা'। আমরা খুন, গুম, অপহরণ, চাঁদাবাজি, রাজনৈতি সংকট... এর মত বড় বড় সমস্যা নিয়ে বেশি চিন্তিত হয়ে দুর্নীতিকে কম ক্ষতিকর হিসেবে সহ্য করতে শুরু করে দিয়েছি অথচ কেউ ভাবছি না যে এইসব বড় বড় সমস্যার মূলেও রয়েছে 'দুর্নীতি' এবং দুর্নীতির ভাগ-বন্টকের হিনাব-নিকাশের কোন্দল।

Mohammad.Abul.Basher's picture

নিজের পাঁচালি: আমার চিন্তা, আমার স্বপ্ন

১.

Sleep

আমার ঘুম খুব গভীর। অনেকেরই ঘুম নিয়ে নানা বাহানা থাকে, কেউ প্রায় প্রতি রাতে লেফট রাইট-লেফট রাইট করে শোয়ার স্থান পরিবর্তন করে, কেউ বা আবার ঘুমের আগে ঠান্ডা এক গ্লাস পানি খায়। আমার নানাজানকে দেখেছি রাতের খাওয়ার পর চল্লিশ কদম হাঁটাহাঁটি করতেন। কারন জিজ্ঞাসা করলে বলেছিলেন যে খাওয়ার পর চল্লিশ কদম হাটা সুন্নত, এছারাও রাতের খাওয়ার পর চল্লিশ কদম হাটলে খাবার হজমের সুবিধা হয় ও রাতে ভাল ঘুম হয়। আবার আমার এক সাবেক বেলজিয়ান গার্ল ফ্রেন্ড কে দেখতাম ঘুমোনোর আগে টয়লেটে যেতো। না ছোট কর্মের জন্য না, বড়ো খাজনা দিতে। তার অভিমত ছিলো, পাকস্থলী নির্ভার থাকলে ঘুম নির্বিঘ্ন হয়।

A.S.Fahim's picture

বিলাত কথন: ১- যাত্রা শুরুর কথা

বিলাত কথনের শুরুতে আমার লন্ডন যাত্রার প্রেক্ষাপট বলা দরকার।

আসলে লন্ডন বা ইংল্যান্ড যাওয়ার তেমন আগ্রহ আমার কোন সময় ছিলনা। না হয় ২০০৪ বা তারও আগে-পরে চলে যেতে পারতাম। আমার বরং বিদেশ যাওয়ার চাইতে দেশে পলিটিক্স করেই আনন্দ পেতাম। ফ্রেন্ডরা যখন টাংকির চিন্তায় অস্থির আমি তখন প্রোগ্রাম কেমনে সফল করা যায় তা নিয়ে চিন্তায় অস্থির। সেটা কলেজ লাইফ থেকেই।
সেই আমিই হঠাৎ করেই বিদেশে চলে আসতে হল। এর পিছনে অনেক কিছু কারণ ছিল। তার মধ্যে অন্যতম বাবা-মার সীমাহীন টেনশন (দেশের অস্থিরতা) আর কিছু প্রিয় লোকের উপর আসা তীব্র ঘৃনা ও বিরক্তি। মূলত এই দুইয়ের যোগফলেই বিদেশ চলে আসার সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করে।

ঈদ ২০১৪: বিচ্ছিন্ন কিছু ভাবনা - জাকারিয়া স্বপন

আজ বাংলাদেশে ঈদ শেষ হয়ে গেল। এখন যদিও ঘড়ির কাঁটায় ৩০ জুলাই শুরু হয়ে গেছে, তবুই "আজ" বললাম ঈদের রেশটুকু যেন সেন্ট মার্টিনের ফ্রেশ বাতাসের মতো প্রাণের ভেতর আটকে থাকে। ঢাকার জীবনে ফ্রেশ বলে কিছু নেই। বাতাস থেকে শুরু করে খাবার পর্যন্ত কোথাও ফ্রেশ নেই। হয়তো মানুষের বেলাতেও সেটা সত্যি। ফ্রেশ মানুষ থাকলে, ফ্রেশ বিষয়াদিও হয়তো থাকতো।

আমার শরীরটা ভালো না। টনসিল ব্যাথা। কাল রাতে আবার জ্বরও এলো। সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি মুখ তিতা হয়ে আছে। শরীর চালানো মুশকিল। দুপুর নাগাদ খাওয়ার জন্য একটু বের হওয়া হলো। তারপর বিছানায় শুয়ে একটু বিশ্রাম নেয়ার চেষ্টা। আমেরিকা থেকে খুব বন্ধুরা এসেছে। তাদেরকে দেখতে গেলাম। তারপর রাতে ডিনার করে বাসায় এসে এই লিখতে বসা। ব্যাস, সাদামাটা ঈদ শেষ। কিন্তু এই অল্প সময়ে কিছু জিনিস মাথায় ঢুকেছে। ভাবলাম একটু লিখে রাখি। পরের বার হয়তো আর লেখার সুযোগ নাও পেতে পারি।

Golam.Mortoza's picture

আজান এবং মধ্যরাতের ডাকাডাকি

Mosque

ভোরে ঘুম ভাঙ্গতো বকুল ফুলের গন্ধে, আর দূর থেকে ভেসে আসা মাইকবিহীন আজানের ধ্বনি -সত্যিই বিশ্ময়কর ছিল ' আজানের সুমধুর ধ্বনি '! কান পাতলে এখনো অনুভব করি গ্রামের মসজিদের সেই আজানের ধ্বনি, বকুল ফুলের সেই গন্ধ এখনও অম্লান!!

এই শাড়িটা নেন, বিক্রি করে দিয়েন না

ঢাকা শহরে সুযোগ পেলেই আমি হাঁটি। অনেকেই হয়তো ভাবছেন, শখ করে সকাল বিকেল হাঁটাহাটির কথা বলছি। না, শখের হাঁটার কথার বলছি না; কষ্টের হাঁটার কথা বলছি। যেমন আজকের হাঁটার কথাটাই বলি।

বারিধারা থেকে বাসায় ফিরবো। অনেকক্ষণ দাড়িয়ে থাকলাম একটি স্কুটারের জন্য। তারপর যা পাওয়া গেল, সে ভাড়া চাইলো আড়াই শ' টাকা। অনেক চাইছে স্কুটারওয়ালা। এর কমে সে যাবে না। ঈদের বাজার বলে কথা। আমি আস্তে আস্তে হাটতে শুরু করলাম। দেখি সামনে কোনও খালি স্কুটার পাওয়া যায় কি না!

Shekhor.Seraj's picture

জন কল্যাণমুখী রাষ্ট্রের সুযোগ সুবিধা ও নাগরিক অধিকারের জন্য গণতন্ত্রের সাথে এক আধ পোয়া সমাজতন্ত্রের ওরস্যালাইন মিশিয়ে নেন।

জনগণের তিন-বেলা আহার আর সঙ্গম ছাড়া জনগণের বাকি সব কিছুর দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে। জন কল্যাণমুখী
রাষ্ট্রের সুযোগ সুবিধা ও নাগরিক অধিকার তাই বলে। সরকারের জন্য বিষয়'টা এমন খুব কঠিন কিছু না। গণতন্ত্রের সাথে এক আধ পোয়া সমাজতন্ত্রের ওরস্যালাইন মিশিয়ে নেন।

Kamrul Hasan Masuk's picture

প্রচন্ড গরমে বহুজাতিক কম্পানিগুলো যা করতে পারে

গরমে গরমে নগরবাসীর অবস্থা বড়ই নাজুক। ৫৪ বছরের ইতিহাসে বাংলাদেশে এই প্রথম এত গরম। গরমের সাথে সাথে মানুষজনের মেজাজ খারাপ করার পাশাপাশি বাড়ছে অস্থিরতা। এই অস্থিরতা কমানোর জন্য বহুজাতিক কোম্পানিগুলো বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে পারে।

Md. Galib Mehdi Khan's picture

যখন বিষণ্ণ জন্মদাত্রী “মা”; সন্তানের যাচিত নরকবাস!

9d10c7cfeaf5e1163a7f50456197494c.png
সারা জীবনের যত খাটা খাটুনি; তা তো একটু সচ্ছলতা, একটু সুখেরই আশায়। এই যে দিনে দিনে আমরা এক একটি যন্ত্র মানব হয়ে উঠছি তা তো একটুকু নিশ্চিন্ত নিরাপত্তা বিধানের নিমিত্তেই। কিন্তু; এই সুখ সমৃদ্ধির সাথে যদি শান্তির সমন্বয় না ঘটে তাহলে এর সবই কি এক সময় মূল্যহীন মনে হবে না? অথচ মানুষের জীবনে সুখ-সমৃদ্ধি অর্জন যতটা কষ্ট সাধ্য ঠিক ততটাই সহজ সাধ্য শান্তি অর্জন। প্রয়োজন একটু ছাড় দেয়ার মানসিকতা। বড় লাভের তরে সামান্য ত্যাগ। কথাটি এ জন্য বলছি; আজ আমরা যারা লাগামহীন ভোগের জীবনে প্রবেশ করেছি তারা অনেক কিছু অর্জনে সক্ষম হলেও একই সাথে অশান্তির দাবানলেও নিত্য দগ্ধ হচ্ছি। যার স্রষ্টাও আমরাই।

Syndicate content