General

Mir.Abdul.Alim's picture

নদী মরলে আমরা কি বাঁচব

আমাদের নদীগুলো মরে যাচ্ছে। কোনোটা হচ্ছে শুকিয়ে খাল আবার কোনোটা ফসলি জমি। সামান্য পানি যতটুকু আছে তাও বিষাক্ত বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে। কিছু মানুষ এসব নদীর টলমলে পানি দূষিত করে দিচ্ছে। আর ভারত তাদের সীমানায় বাঁধ দিয়ে আমাদের নদীগুলোর টুঁটি চেপে ধরছে। নদীগুলোকে একে একে অসুস্থ করে তুলছে। অতঃপর এসব নদী অকালেই প্রাণ হারাচ্ছে। আমাদের নদীগুলো ব্যথা-যন্ত্রণায় দিনরাত শুধু কাঁদে। নদী আবার কাঁদে নাকি? কাঁদেই তো?

ঈদ উৎসবে অনাবিল আনন্দধারা

ঈদ আমাদের আনন্দধারা। সেই অনাদিকাল থেকে ঈদ উৎসব মুসলিম উম্মার এক মনোরম ঐতিহ্য। মুসলিম জীবনের কৃষ্টিতে বারবার ঈদুল ফিতর ফিরে আসে। হৃদয়ের কানায় কানায় আনন্দ উৎসবে মাতোয়ারা করে তোলে। সব বয়সী মানুষের জীবনে আসে এক অনাবিল মোহনীয় জগৎ।

আমাদের প্রিয় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের লেখা 'ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশীর ঈদ' গানটি শোনার সঙ্গে সঙ্গে হৃদয় মন নেচে ওঠে। এ গান বেজে উঠলে মনোরম আবহ ছড়িয়ে পড়ে। সব মুসলিম পরিবারে শিশু-কিশোর তরুণ-তরুণী এ গানের সঙ্গে সুর মিলিয়ে গাইতে থাকে।

Mujahidul.Islam.Selim's picture

অস্ত্রমুক্ত করতে হবে ইসরাইলকে

গত ২১ দিন ধরে ইসরাইল ফিলিস্তিনের গাজা ভূখণ্ডে গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে। গাজা ভূখণ্ডের প্রায় সব মানুষই মুসলমান। অধিবাসীদের ৮০ শতাংশ হলো ইসরাইল অধিকৃত অঞ্চল থেকে বিতাড়িত উদ্বাস্তু। অন্যদিকে ইসরাইল হলো দখলকৃত ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে স্থাপিত একটি ইহুদি রাষ্ট্র। এটি একটি 'জায়নবাদী' রাষ্ট্র। তার মতবাদ হচ্ছে, "ইহুদিরা হলো ঈশ্বরের 'বাছাইকৃত' জনগোষ্ঠী এবং ফিলিস্তিন ভূখণ্ড হলো তাদের জন্য ঈশ্বর কর্তৃক নির্ধারণ করে দেয়া আবাসস্থল"। একথা পরিষ্কার যে, এই মতবাদ হলো বর্ণবাদী, প্রতিক্রিয়াশীল, সাম্প্রদায়িক ও ফ্যাসিস্ট চরিত্রের। ইসরাইলের বেশিরভাগ মানুষ হলো ইহুদি এবং সেসব ইহুদির প্রায় সবাই হলো গত ৬০ বছর ধরে সেখানে

ইহুদি বর্বরতা ও অন্যান্য বাস্তবতা ঈদের আনন্দ মিলিয়ে দিয়েছে

আজ থেকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটি শুরু। নাড়ির টানে ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির লালনে স্বজনদের কাছে ফিরে যেতে শুরু করছেন অনেকেই। উদ্দেশ্য একত্রে ঈদ করা। ঈদ মানেই আনন্দ। আনন্দ ভাগাভাগি করতে হলে এক ধরনের মানসিক প্রস্তুতি ও সুস্থতার প্রয়োজন রয়েছে বৈকি। আনন্দের কোন শ্রেণীভেদ নেই। যে যার সামর্থ্য বাস্তবতায় আনন্দ অনুভব করতে পারে যদি মনের অবস্থা সুস্থ ও স্বাভাবিক থাকে। এ বছর যখন পবিত্র ঈদুল ফিতর পালিত হচ্ছে তখন বর্বর ইহুদী রাষ্ট্র ইসরাইলের নির্মমতায় ফিলিস্তিনে নারী-শিশুর আর্তচিৎকারে আকাশ-বাতাস কাঁপছে। রক্তপিপাসু ইহুদিরা সেখানে চালাচ্ছে নির্বিচার গণহত্যা। বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠার মুখোশধারী জাতিসংঘ নীরব ভূমিকা

নতুন মার্কিন রাষ্ট্রদূত কী বার্তা নিয়ে আসছেন?

ঢাকা থেকে বিদায় নিতে যাচ্ছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজেনা। আসছেন নতুন রাষ্ট্রদূত। নাম মার্সিয়া স্টিফেন্স ব্লুম বার্নিকাট। সংক্ষেপে তাকে মার্সিয়া বার্নিকাট বলে ডাকা হয়। তিনি হবেন বাংলাদেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ১৫তম রাষ্ট্রদূত।

Shaikh.Siraj's picture

বিকাশ ও বিকশিত সময়ের ঈদ

রোজা আর ঈদকে সামনে রেখে অনেক আগে থেকেই কাজ গোছানোর প্রস্তুতি ছিল। পূর্ব আফ্রিকার রুয়ান্ডা সফর, ফিরে এসে কৃষকের বিশ্বকাপ ধারণ, তারপর কৃষকের ঈদ আনন্দ, পরপরই ওমরাহ পালনের জন্য মক্কা যাওয়া, ভেতরে ভেতরে হৃদয়ে মাটি ও মানুষের নিয়মিত শুটিং- সব মিলিয়ে শরীরের ওপর বেশ ধকল গেছে। রোজার দিনগুলোতেও নানামুখী ব্যস্ততা তো রয়েছেই। উনিশ রোজায় সেহরি খাওয়ার পর হঠাৎ শরীরটা খারাপ করল। পানিশূন্যতা থেকে পেটের গোলমাল, তারপর রীতিমতো জ্বরে পড়ে গেলাম। দুদিন টানা বিছানায়। বিছানায় শুয়ে থাকা আমার স্বভাবে নেই। তারপরও অসুস্থতায় বিছানা যখন টেনে রাখে তখন কিছুই করার থাকে না। যা হোক, বিছানায় শুয়েই ঘর-গেরস্থালির নানান কথাবার্তা কানে

Hasan.Ahmed.Chowdhury.Kiron's picture

সুশাসনের অভাবেই ব্যাংকিং খাতে বিশৃঙ্খলা তৈরি হচ্ছে

দেশের ব্যাংক খাত এখন রীতিমতো হাস্যকর প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। মনে হয় যেন এই খাতে জবাবদিহিতা, সুশাসন, নজরদারি, শাস্তি, বিচার বলে কিছুই নেই। কেউ জনগণের আমানত লুট করলে অথবা রাষ্ট্রের অর্থ চুরি করলে তাকে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে না। জনগণের সঞ্চয়কৃত টাকাও ফেরত দিতে হবে না। আবার যারা অন্যায়কারীদের শাস্তি নিশ্চিত করবেন তারাই যেনতেন মন্তব্য করে লুটপাটকারী বা জালিয়াতচক্রের পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করবেন। চটুল বা হালকা মন্তব্য করে অথবা হাস্যরস ছড়িয়ে সবকিছু উড়িয়ে দেবেন। লুটপাট হয়ে যাওয়া টাকার কোনো হদিস মিলবে না। সবশেষে ক্ষতিগ্রস্ত হবে দেশ ও জনগণ। ব্যাংকিং খাতের বর্তমান বিশৃঙ্খল অবস্থা এই নির্মম সত্যতাই প্রমাণ

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

জীবনে জীবন যোগ করা...

রবীন্দ্রনাথ লিখেছেন, জীবনে জীবন যোগ করা, না হলে কৃত্রিম পণ্যে ব্যর্থ হয় গানের পসরা। ঈদ মানে উৎসব আর উৎসবের মর্মকথাই হল প্রাণের মিলন, জীবনে জীবন যোগ করা। শুধু বাঙালি মুসলমানের দুয়ারে নয়, সারা বিশ্ব মুসলমানের দুয়ারেই আবার ঈদুল ফিতর বা রোজার ঈদ উপস্থিত। এই উৎসবের বৈশিষ্ট্য দীর্ঘ এক মাসের কৃচ্ছ্র সাধনার পর শ্রেণী-বৈষম্য রহিত একটি উৎসব পালন করা। এই দিন ঈদের ময়দানে ধনী-দরিদ্রের সঙ্গে, অভিজাত-অচ্ছুতের সঙ্গে একাসনে বসেন এবং কোলাকুলি করেন। প্রতি ঘরে থাকে মিষ্টান্ন প্রত্যেকের জন্য।

'ছেলে মারে, বলতেও লজ্জা পান মা'

শিরোনামটা দেখে যে কোনো বয়সী স্পর্শকাতর মা কেঁদে ফেলবেন। বয়সী বলছি এই কারণে যে, লালন-পালন করা বড় ছেলেই তো করতে পারে কাজটা! মায়ের যখন বয়স হয়, যখন তার যত্নআত্তি এবং ভালোবাসা প্রয়োজন, তখন ছেলেমেয়েরাই পূরণ করে সে চাহিদা। বিশেষ করে মোটামুটি শিক্ষিত পরিবারে এটাই ঐতিহ্য। তবু সমাজে গড়ে উঠেছে বৃদ্ধাশ্রম।

Mir.Abdul.Alim's picture

ঈদ-চাঁদাবাজি

সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজরা কোথায়? তারা লুকিয়ে তো নেই। তাহলে কেন তাদের নির্মূল করা যাচ্ছে না? তারা তো আর নিশাচর নয় যে, রাতে বের হয়। প্রকাশ্যে যদি থাকে, তাহলে তাদের নির্মূল করা হচ্ছে না কেন? এটিকে আমরা দলপ্রীতি, নাকি সরকারের আন্তরিকতার অভাব বলব? দেশের সংবাদপত্রগুলো প্রতিদিনই ঈদ-চাঁদাবাজির সংবাদ ছাপছে। বেশরিভাগ চাঁদাই যাচ্ছে রাজনৈতিক দলের নেতা আর পুলিশের পকেটে। দেশে চাঁদাবাজি সবসময়ই চলে। ঈদে বাড়ে। স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বেশি পরিমাণ চাঁদার টাকা গুনতে হয় জনগণকে। ঈদে এলে সরকারের মন্ত্রী-আমলারা চাঁদাবাজি বন্ধের হুঙ্কার দেন। এসব হুমকি-ধমকি অনেকটাই লোক দেখানো। তা যদি না হয়, তাহলে চাঁদাবাাজ বন্ধ হয় না কেন?

Syndicate content