Abdul.Gaffar.Chowdhury's blog

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

সেবার ছিল সপ্তম নৌবহর এবার ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন

কবিরা নাকি ভবিষ্যদ্দ্রষ্টা হন। অন্তত তার প্রমাণ আমরা পাই কবি সিকান্‌দার আবু জাফরের একটি গানে। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি এই গানটি লিখেছিলেন এবং মুক্তিযোদ্ধাদের কণ্ঠে ছিল এই গান। 'এবারের সংগ্রাম চলবেই চলবে'- গানটি এখনো গীত হয়। কবি সিকান্‌দার আবু জাফর ভবিষ্যদ্দ্রষ্টা ছিলেন বলেই হয়তো বুঝতে পেরেছিলেন, আমাদের মুক্তির সংগ্রাম শিগগিরই সফল হতে পারে, কিন্তু শিগগিরই থামবে না। পরাজিত শত্রুর সঙ্গে এই যুদ্ধ বহুকাল চলবে।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

“ইহারা কাহার জন্ম নির্ণয় ন’ জানি”

১৬ ডিসেম্বর সোমবার রাতে লন্ডনের উদীচী ও চ্যানেল আইয়ের ‘বিজয়মেলার’ অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। তাতে নাচ-গান ও আলোচনা ছিল। অনুষ্ঠান শেষে বাড়ি ফেরার মুখে এক বিশিষ্ট বাঙালী ব্যবসায়ী বন্ধু বললেন, বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস দমনে সরকার কঠোর হয়েছে, ধীরে হলেও সফল হচ্ছে, তাতে আমরা আনন্দিত। কিন্তু নির্বাচনের নামে এটা কী হচ্ছে? বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় একতরফাভাবে সরকারী জোটের মনোনীত প্রার্থীরা জিতে যাচ্ছেন! এটা কি দেশে ও বিদেশে স্বীকৃতি লাভ করবে? ৫ জানুয়ারির পর মহাজোট যদি নতুন সরকার গঠন করেও সেই সরকার কি দেশ চালাতে পারবে?

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

এবার যুদ্ধরত বাঙালি বিজয় দিবস পালন করল

বাংলাদেশের মানুষের এবারের বিজয় দিবস পালনটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। যুদ্ধরত অবস্থায় তাকে বিজয় দিবস পালন করতে হয়েছে। এটা অনেকে অনুধাবন করতে পেরেছেন কি না জানি না। ৪২ বছর আগে (১৯৭১) তারা যে যুদ্ধটি শুরু করেছিল, সেটি অর্ধসমাপ্ত রয়ে গিয়েছিল। স্বাধীনতালাভের পর বাংলাদেশের মানুষের সেই যুদ্ধটি ক্ষমতার নানা হাতবদলের মধ্য দিয়েও নানা চেহারায় অব্যাহত ছিল। এবার সেটা আবার পূর্ণাঙ্গভাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। এটাই চূড়ান্ত যুদ্ধ মনে হয়। এই যুদ্ধের ফলাফল দ্বারাই বাংলার ভাগ্য হয়তো আবার দীর্ঘকালের জন্য নির্ধারিত হয়ে যাবে।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

বাংলাদেশের সুধীসমাজ ভেবে দেখুন

ড. গঙ্গাধর অধিকারী অবিভক্ত ভারতে অবিভক্ত কমিউনিস্ট পার্টির একজন তাত্ত্বিক নেতা ছিলেন। ১৯৪৫-৪৬ সালের দিকে তিনি একটা চিঠি লিখেছিলেন কংগ্রেস নেতা জওহরলাল নেহরুকে। দীর্ঘ চিঠি। পরে ইংরেজি ও বাংলায় ন্যাশনাল বুক এজেন্সি (ইন্ডিয়া) কর্তৃক প্রকাশিত হয়েছিল। বাংলা বইটির শিরোনাম ছিল, 'পণ্ডিত নেহরু ভাবিয়া দেখুন'।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

আবার একাত্তর ॥ কার কোথায় অবস্থান?

ঢাকায় আমাদের এক পরিচিত জ্যোতিষীকে সম্প্রতি জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি শেষ পর্যন্ত কী দাঁড়াবে? জ্যোতিষী বলেছেন, ‘আমার গণনা বলে, এই পরিস্থিতি সহসাই পরিবর্তিত হবে এবং মহাজোট ক্ষমতায় থাকবে।’ জ্যোতিষী-বাক্যে আমার খুব একটা বিশ্বাস নেই। কিন্তু আমার কোন কোন বন্ধু তাতে মহা উৎসাহী হয়েছেন, বিশেষ করে আমরা রাজনৈতিক-গবেষক বন্ধু মোনায়েম সরকার উৎসাহের আধিক্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একটা নোট পাঠিয়ে জ্যোতিষীর কথাটা তাঁকে জানিয়েছেন।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

'রোম যখন পুড়ছিল, নিরো তখন বাঁশি বাজাচ্ছিলেন'

বাংলাদেশে বিএনপি-জামায়াতের 'লঙ্কাকাণ্ডের' মেয়াদ আরো তিন দিন বাড়ানো হয়েছে। অর্থাৎ আগামী বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) পর্যন্ত চলবে রেললাইন উপড়ে ফেলা, বাসযাত্রী পুড়িয়ে মারা, নিরীহ পথচারীকে ককটেল মেরে দগ্ধ করে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া- এমন সব বর্বরতার চেষ্টা। এ ব্যাপারে আমাদের আঁতেল শ্রেণীর একটি বড় অংশের ভূমিকা বিস্ময়কর। রোম শহর যখন পুড়ছিল, তখন নিরো নাকি বাঁশি বাজাচ্ছিলেন।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

এই সন্ত্রাস কত দিনের এবং কী জন্য?

আমার ভবিষ্যদ্বাণী সঠিক হয়েছে তা বলি না, তবে আশঙ্কাটা সত্য হয়েছে। নির্বাচনের তফসিল ঘোষিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিএনপি-জামায়াত হরতাল-অবরোধের নামে জ্বালাও-পোড়াও সন্ত্রাসে নেমেছে। যেসব জায়গায় জামায়াতের দাপট বেশি, যেমন সাতক্ষীরা, বগুড়া, সিলেট, চট্টগ্রাম ইত্যাদি সেসব জায়গায় হরতাল বা অবরোধপূর্ব তা-বটা একটু বেশি হয়েছে। ঢাকার ছবি টেলিভিশনেই দেখছি। মঙ্গলবারের (২৬ নবেম্বর) ছবি। সকালের দিকে রাস্তাঘাট প্রায় জনশূন্য ছিল। কিন্তু দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রাস্তাঘাট আবার স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

নির্বাচন নিয়ে বিএনপি উভয়সংকটে

বাংলায় একটি কথা আছে, 'অতি চালাকের গলায় দড়ি'। আগামী সাধারণ নির্বাচন নিয়ে অতি চালাকির খেলা খেলতে গিয়ে দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপির এখন সেই দশা হয়েছে মনে হয়। এখন তারা উভয়সংকটে (horns of dilemma)। শ্যাম রাখি না কুল রাখি- এই সমস্যায় পড়ে গেছে। এখন যদি তারা নির্বাচনে যায়, তাহলে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বহুদলীয় নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে যেতে হবে।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

বিএনপি না এলে কি নির্বাচন একদলীয় হবে?

গত সপ্তাহে ‘চতুরঙ্গে’ প্রকাশিত আমার লেখাটি অর্ধসমাপ্ত ছিল। সুহৃদয় পাঠকদের জানিয়েছিলাম, ইউনূস-শিবিরের বাংলা ও ইংরেজী দুটি মুখপত্রের ‘সংবিধানসম্মত, না সকলের অংশগ্রহণে নির্বাচন’ এই বিতর্ক সৃষ্টি যে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা সে সম্পর্কে এ সপ্তাহে আলোচনা করব। বিএনপি নির্বাচনে না এলেই নির্বাচন একদলীয় হয়ে যাবে, এ অপপ্রচারও যে উদ্দেশ্যমূলক তাও পাঠকদের কাছে তুলে ধরব। আজ সে উদ্দেশ্যেই কলম ধরা।
গত সপ্তাহে আমার লেখাটি প্রকাশিত হওয়ার পর বুড়িগঙ্গার পানি অনেক দূর গড়িয়েছে।

Abdul.Gaffar.Chowdhury's picture

'ভালোই হয়েছে প্রভাত এসেছে মেঘের সিংহবাহনে'

রবীন্দ্রনাথের একটি কবিতার লাইন আমি প্রায়শ আমার লেখায় প্রাসঙ্গিকভাবে উদ্ধৃত করি। লাইনটি হলো 'ভালোই হয়েছে প্রভাত এসেছে মেঘের সিংহবাহনে।' সোমবার (১৮ নভেম্বর) সকালে যখন লন্ডনে বসে খবর পেলাম, বাংলাদেশে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হয়েছে এবং মন্ত্রিসভার নতুন অন্তর্ভুক্ত মন্ত্রীরা (পুরনো যাঁরা থাকছেন তাঁদের নতুন করে শপথ নিতে হবে না) শপথ নিতে যাচ্ছেন, তখন রবীন্দ্রনাথের এই বহুল উদ্ধৃত কবিতার লাইনটি আবার আমার মনে পড়েছে।

Syndicate content